দেশের খবর

ভিপি নুরের অডিও ‘আধুনিক টেন্ডারবাজি’: রাব্বানী

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের ভিপি নুরুল হক নুরের ফাঁস হওয়া অডিওকে ‘আধুনিক টেন্ডারবাজি’ অ্যাখ্যা দিয়েছেন জিএস গোলাম রাব্বানী। ‘দুর্নীতি এবং নৈতিকস্থলনজনীত’ বিষয় নিয়ে রবিবার একটি সংবাদ সম্মেলনও ডেকেছেন তিনি। শনিবার (৭ ডিসেম্বর) বিকালে বাংলা ট্রিবিউনের কাছে ভিপির অডিও সম্পর্কে বলতে গিয়ে এ অ্যাখ্যা দেন রাব্বানী। তিনি বলেন, ভিপি নুরের যে অডিও ফাঁস হয়েছে সেটি হল আধুনিক সময়ের টেন্ডারবাজি। এখন আর অস্ত্র ঠেকিয়ে টেন্ডারবাজি করা লাগে না। ফোনে পরিচয় ব্যবহার করে কথা বলাটাই টেন্ডারবাজি। টেন্ডারবাজ ভিপি থাকবে কি না-সে বিষয়ে ডাকসুর অধিকাংশ সদস্য অনাস্থা প্রস্তাব দিলে সেই প্রস্তাব অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

ডাকসুর পক্ষ থেকে ভিপি নুরের ‘আর্থিক দুর্নীতি’ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন রাব্বানী। গণমাধ্যমে পাঠানো তার স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরের আর্থিক এবং নৈতিক স্থলনজনীত বিষয়ে রবিবার সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে।’ জিএস রাব্বানী জানান, অন্যান্য সদস্যরা যদি ভিপিকে অনাস্থাজ্ঞাপন করে, তাহলে সেই অনাস্থা প্রস্তাব ডাকসুর সভাপতির কাছে পাঠানো হবে। এরপর উপাচার্য যেটি ভাল মনে করে তিনি সেটি করবেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডাকসুর ভিপি নুর বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘যেখানে জিএস গোলাম রাব্বানী নিজেই অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকায় ছাত্রলীগের পদ হারিয়েছে, সেখানে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তুলে এ ধরনের কথা বার্তা বলাটা হাস্যকর। অনৈতিক কর্মের পর তিনি এখন ডাকসুতে খুবই কম আসেন। আসলেও রাতের আঁধারে আসেন।’ প্রশাসন ছাত্রলীগের কর্তৃত্বের মাধ্যমে ডাকসুকে ‘ডাকসুলীগ’ বানিয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘ছাত্রলীগ যেভাবে বলে প্রশাসনও সেভাবে সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। সাধারণ শিক্ষার্থীদের বৈধ সিটের বিষয়ে আমরা প্রশাসনকে আল্টিমেটাম দিয়েছি, এখন সেই ভয়ে আমার বিরুদ্ধে যৌথ ষড়যন্ত্র চলছে।’ ভিপি নুরুল জানান, যদি প্রশাসন এবং ‘ভূয়া নির্বাচনের’ মাধ্যমে ছাত্রলীগের প্যানেলে নির্বাচিত সদস্যরা তার বিরুদ্ধে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়, তাহলে সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে মোকাবেলা করবেন তিনি। এ বিষয়ে ডাকসুর সভাপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘ভিপির অডিও সম্পর্কে আমি এখনও বিস্তারিত জানি না। ডাকসুর সদস্যরা তাদের অনাস্থাজ্ঞাপনের প্রস্তাব জানানোর এখতিয়ার রাখে। তবে, বিষয়গুলোর মাত্রা না জেনে কোনো মন্তব্য করা ঠিক হবে না। কিছু আছে রাষ্ট্রীয় বিষয়, সেটি সম্পর্কে রাষ্ট্র দেখবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলাপরিপন্থী কিছু হয়ে থাকলে সেটি আমরা দেখবো।’ উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার একটি বেসরকারি টেলিভিশনে ভিপি নুরের একটি খণ্ডিত ফোনালাপ সম্পর্কিত সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপর মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামের একটি সংগঠন নুরুল হকের পদত্যাগের দাবিতে তার কুশপুত্তলিকাদাহ করে এবং তার ডাকসু কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয়। তবে নুরের দাবি, তার ফোনালাপটি একজন সাধারণ মানুষের সঙ্গে হয়েছে। এটিকে খণ্ড খণ্ড করে গণমাধ্যমে প্রচার করা হয়েছে। পুরো ফোনালাপটি প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন তিনি। এদিকে, গণমাধ্যমে তিনি আরও জানিয়েছেন তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির বিন্দুমাত্র প্রমাণ দিতে পারলে তিনি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করবেন।

Related posts

Leave a Comment